Thursday, October 11, 2007

সেই মেয়ে

Title of this post: That Girl (A short story) written by Zannat Ara Amzad (English & computer student)
Content of this post: In this short story, author has written a story about a family from her imagination.


আজ তিথিদের বাড়ির পরিস্থিতি অত্যন্ত শোচনীকারণ আজ শুক্রবারশুক্রবার ছুটির দিনতিথির বাবা আজ বাড়িতেআর ছুটির দিন বলেই তিথিদের বাড়ির পরিস্থিতি খুব একটা ভাল নাতিথির বাবা সরকারি চাকরিজীবিতিনি ভিন মেজাজি লোকআর তিনি যতক্ষন বাড়িতে থাকেন ততক্ষন বাসার সবাই খুব ভয়ে ভয়ে থাকেনকখন যেন চিৎকার চেচাঁমেচি শুরু হয়ে যায়দুই বোন ও এক ভাই নিয়ে তিথিদের সংসারতার মধ্যে তিথি মেঝো আর তার বড় বোন বিথিএবার অনার্স সেকেন্ড-ইয়ারে পরছে এবং ছোট ভাই অভি ক্লাস থ্রিতেতিথির বাবা যেমন ভিষন মেজাজি, ঠিক তেমনি তিথির মা, যেমনি রাগি তেমনি ভালএকদিন বিথি আপা তার এক বান্ধবির বাড়িতে গেল আপা বাসা থেকে বের হয়েছে সকাল নয়টার দিকেআর বাসায় ফিরেছে সন্ধ্যা সাতটায় আর আপার ভাগ্য ভাল যে সেদিন তখনও বাবা অফিস থেকে বাড়ি ফিরেনি নইলে সেদিন আপার খবর ছিলযখন আস্তে আস্তে সন্ধ্যা ঘনিয়ে এল তখন থেকেই আমি আর অভি ভিষন চিন্তা করছিলাম আজ কি যেন কি ঘটে যায়এর আগে এমন কখন ঘটেনিহঠাৎ বেল বেজে উঠলএই বুঝি বাবা এল! কিন্তু না, গেট খুলতেই সুর সুর করে ঘরে ঢুকে পরল আপা তার আচরন স্বাভাবিকযেন কিছুই হয়নি,

মা রান্না ঘথেকে জিজ্ঞেস করল, তিথি কে এল?
আমি ভয়ে বললাম, আপা এসেছে
মা এসে বলল , বিথি দুপুরে খেয়েছিস?
আপা বলল, হ্যাঁ মা, খেয়েছিমা- আমি ভিষন ক্লান্তআমি হাত-মুখ ধুয়ে ঘুমোবো,আমাকে কেউ ডাকবে না
মা বলল , সে কি রাতে খাবিনা!
আমি আর অভি মা-র ব্যাবহার দেখে অবাক হয়ে গেলামঅথচ এর আগেও আপা একবার কলেজ থেকে ফিরতে দেরি করেছে বলে মা আপাকে খুব বকাঝকা করেছিলতখন আপা ইন্টার সেকেন্ড ইয়ারে পড়তআমি মার কাছে গেলাম বললাম , মা তুমি আপাকে কিছু বললেনা যে
মা বলল, কি বলব?
আমি বললাম, ওইযে আপা রাত করে বাড়ি ফিরেছে
মা বলল, এতে বলার কি আছে!
আমাদের বাড়ির সবাই শুক্রবার দিনটাকে ভয় করেবাবা সেদিন বাসায় থাকে বলেএতক্ষন আমরা ভিষন ভয়ে ছিলামকিন্তু হঠাৎ বাবা সবার সাথে স্বাভাবিক ভাবে কথা বলছে
বাবা আপার ঘরে গিয়ে আপার মাথায় হাত বুলিয়ে বলেছে, কি করছিস?
আপা উত্তর দিল, জি বাবা উপন্যাস পছিলাম
বাবা বলল, ভালো উপন্যাস পড়া ভালো এতে করে অনেক কিছু শেখার আছেতা কি উপন্যাস পছিস ?
আপা বলল, উপন্যাসটির নাম- আজ চিত্রার বিয়ে
বাবা বলল, যাই হোক যা বলছিলাম বুঝলি তোদের মত এই বয়সে আমরাও উপন্যাস পতামকত উপন্যাস পড়েছিহাঃ হাঃ হাঃ
আমি বাবাকে কখন এমন প্রাণ খুলে হাসতে দেখিনিবাবা আপার ঘ থেকে হাসতে হাসতে বের হলএই যা এখন বাবা আমাকেউ ডাকছে
বাবা বলল, তিথি আমি বেলকুনিতে গিয়ে বসছিতুই আমার জন্য এক কাপ চা বানিয়ে নিয়ে আয়ত মা
আমি বলল, জি বাবা আসছি
মা বিরক্ত কন্ঠে বাবাকে বললেন, আজ সকাল থেকে কি হয়েছে! বলি আজ এত ঘন ঘন চা খাওয়া হচ্ছে কেন ?
বাবা মাকে বললেন, রেহানা, তুমিও এসো তোমার সঙ্গে আমার কথা আছে
মা বললেন, কি কথা তাড়াতাড়ি বলুন! চুলোয় রান্না চড়িয়েছি
বাবা বললেন, আজ সন্ধ্যায় কিছু মেহমান আসবেবিথির জন্য একটা প্রস্তাব এসেছে
মা বললেন, প্রস্তাব! তা ছেলে কি করে, কোথায় থাকে, ছেলে দেখতে কেমন?
বাবা বললেন, আহা রেহানা তুমি এতগুলো প্রশ্ন একসাথে করলে আমি উত্তর দিব কেমন করেছেলে মেরিকা থাকে ওখানে ওদের বাড়ি আছেবিজনেস আছে, এছাড়াও এদেশেও ওদের তিনটা বাড়ি আছেছেলের বাবা বে বড়লোক ওদের এদেশের একটা বাড়ি ঢাকার গুলশানে আর দুটো বাড়ি উত্তরায় আর এমনিতে ছেলের গ্রামের বাড়ি ........... কোথায় যেন ঠিক মনে করতে পারছিনা
মা বললেন,
দেখো বিথির বাবা ছেলের গ্রাম যেখানেই হোক, ছেলের সম্পর্কে যা যা শুনলাম এতে করে ছেলে আমার পছন্দ হয়েছে

চলবে ................